1. admin@subornobangla.com : admin :
  2. biplob.rajgouri@gmail.com : Seikh Biplob : Seikh Biplob
  3. subornobanglabd@gmail.com : Editor : Ronty Chowdhury
  4. hkgouripur@gmail.com : Humayun : Humayun
মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ০৩:১২ অপরাহ্ন

একজন স্বপ্নচারী তারুণ্যের জাদুকর- আওয়ামীলীগের সাইফুল ইসলাম বুড়ো

  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২০
  • ১৮৪ দেখা হয়েছে

মোল্লা তানিয়া ইসলাম তমাঃ

দেশের বিভিন্ন এলাকায় একজন আইকন একটা প্রজন্মের জন্য হয়ে ওঠেন বদলে দেওয়ার জয়গান । রাজবাড়ি জেলার পাংশা উপজেলার একজন প্রবীণ আইকন, যিনি অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়ে যাচ্ছেন দিনরাত ।

ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখা এবং সেই স্বপ্ন পূরণের পথে দুর্বার গতিতে যার ছুটে চলা, তিনি হলেন পাংশা উপজেলা আওয়ামীলীগের সংগ্রামী সভাপতি, মাছপাড়া ইউনিয়নের চারবারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান, বিশিষ্ট সমাজ সেবক, ব্যবসায়ী, কর্মী বান্ধব, দুঃখী মানুষের আশ্রয়স্থল ও প্রবীণ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব সাইফুল ইসলাম বুড়ো ।

তিনি বলেন, নীতি-আদর্শ না থাকলে নেতা হওয়া যায় না । হওয়া গেলেও তা সাময়িক । সেই নেতৃত্ব দেশকে কিছু দিতে পারে না । মানুষের ভালবাসা-আস্থা অর্জন করতে হবে । এটিই রাজনীতিকের জীবনের একমাত্র সম্পদ । জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অন্যায়ের কাছে কখনো মাথা নত করেননি । বঙ্গবন্ধুরর জীবন বিশ্লেষণ করে তার আদর্শ থেকে শিক্ষা নিতে হবে । তিনি ছিলেন অকুতোভয়, অন্যায়ের কাছে কখনো মাথা নত করেননি । বঙ্গবন্ধু আদর্শকে ধারণ করে এগিয়ে গেছেন ।

তার একমাত্র লক্ষ্য ছিল দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর মাধ্যমে জনগণের ভাগ্যের উন্নয়ন করা । বঙ্গবন্ধুর জীবনের প্রতিটি দিন পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, তিনি মানুষকে গভীরভাবে ভালবাসতেন । বাঙালি জাতির মুক্তির জন্য তিনি জীবন উৎসর্গ করেছেন । তার সংগ্রামী জীবনের দিনপঞ্জিকা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য গুরুত্বপূর্ণ দলিল । অনেক ব্যথা-বেদনা বুকে চেপে রেখে নিবেদিত প্রাণ হয়ে কাজ করেছি আমি । ব্যক্তিগত কোন চাওয়া-পাওয়া নেই আমার ।

যে জাতির জন্য বঙ্গবন্ধু জীবন দিয়ে গেছেন, তাদের জন্য কতটুকু করতে পেরেছি, সেই বিবেচনা করেছি । যদি নিজেকে বঙ্গবন্ধুর সৈনিক হিসেবে গড়ে তুলতে হয় তাহলে তার মতো ত্যাগী কর্মী হিসেবে দেশের জন্য, মানুষের জন্য কাজ করতে হবে । বঙ্গবন্ধুরর প্রকৃত সৈনিকেরা অদৃষ্টবাদীর ন্যায় গভীর, গহীন-বিষাদে ডুবে থাকার মানুষ নন । তারা মানবিক মূল্যবোধের উচ্চতায় অসীম ।

অন্তপ্রাণে অসাধারণ অমূর্ত স্মৃতি, কালোত্তীর্ণ প্রতিভা, স্তম্ভিত বিস্ময় প্রতিভা বাঙালি জাতি । বঙ্গবন্ধু হত্যার পর ভীতিকে উপেক্ষা করে পথ চলেছেন, সাহসী উচ্চারণের মাধ্যম আওয়ামী লীগের কর্মীরা আন্দোলনের প্রদীপ জ্বেলে দুঃসাহস যুগিয়েছেন ।

তিমির, নিবিড় অন্ধকার এ মহান বাঙালি জাতি মুখ বন্ধ করেননি । ওজস্বিনী বক্তৃতায় মুক্তির দাবির বন্দনহীন ছন্দের মতো অনর্গল উচ্ছ্বাসে একদিন সভা সমাবেশে যারা সদাজাগ্রত ছিলেন সেই সকল গুনীমান্যি ব্যক্তিত্বদের চিরদিন শ্রদ্ধায় ভক্তিতে স্মরণ করি আমি ।

ক্ষুরধার যুক্তির খাতিরে শূন্যগর্ভ অভিযোগী শব্দে অনেক নেতাই বিশ্বাস করেননি যে কর্মীরাই মূল শক্তি । বঙ্গবন্ধু বিশ্বাসই শুধু করতেন না, তিনি স্বাধীনতা এনে দিয়ে বলেছেন, “আমরা যারা ক্ষমতা ব্যবহার করতে শিখেছি তারাই মুরব্বীয়ানা দেখিয়েছি । যেন আমরা হলাম মালিক, তোমরা আমাদের গোলাম । তোমরা এসো আমাদের বাড়ির দরজায় দাঁড়িয়ে থাকো । আমাদের হুকুম নাও, হুকুম মতো কাজ করো-এই মনোভাব কোন স্বাধীন দেশে চলতে পারে না । “এভরি পার্টি ওয়ার্কার অব মাইন ইজ লাইক মাই ব্রাদার, ইজ লাইক মাই সন । আই ক্রিয়েটেড এ ফ্যামিলি হোয়েন আই অরগানাইজড আওয়ামী লীগ, পলিটিকাল পার্টি মিনস এ ফ্যামিলি- যার ভেতর আছে আইডিওলজিক্যাল এফিনিটি । পার্টিতে উই আর ওয়ান ফর সাম পার্টিকুলার পারপাসেস, হোয়্যারেভার উই আর । কথাগুলো জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ।

বিশিষ্ট রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব জনাব সাইফুল ইসলাম বুড়ো আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর আর্দশিক সৈনিক হওয়ার আগে একজন প্রকৃত রাজনৈতিক কর্মী হতে হবে । যা খুব সহজ নয়। শেখ মুজিব যা হয়েছিলেন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর কাছ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করে । সেটাই পরবর্তীতে তাঁকে অবিসংবাদিত নেতায় পরিণত করে । বঙ্গবন্ধুর আদর্শিক সৈনিক হওয়াও তেমনি কঠিন ব্যাপার । তা হতে হলে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ চর্চা বা অনুসরণ করতে হবে । যা বর্তমানে একেবারেই অনুপস্থিত । নেতা ও কর্মীর মধ্যকার সম্পর্ক কেমন হওয়া উচিৎ সেটা বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী পাঠ করেও উপলব্ধি করা যায় ।

বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন ”মবিলাইজ দি পিপল এন্ড ডু গুড টু দি হিউম্যান বিইংস অব বাংলাদেশ । দিজ আনফরচুনেট পিপল হ্যাভ সাফার্ড লং-জেনারেশন আফটার জেনারেশন । আওয়ামীলীগের সাইফুল ইসলাম বুড়ো সততার উপলব্ধির বিস্ময়কর অনুমানীয় চিন্তাধারাই তার মেধা ও প্রতিভার উচ্চকিত ভাবভঙ্গিতে প্রকাশ পায় । তারুণ্যসুলভ অসীম আশাবাদী এক উদ্যমী কর্মবীর তিনি । নিষ্ঠা, সততা ও দেশপ্রেমবোধের বহু দৃষ্টান্তের উন্মোচন করেন তার আলোচনায় । আস্থা, বিশ্বাস, সততা, নিষ্ঠা, শ্রম ও ত্যাগসুখ আর ব্যক্তিত্বের পরিচয়বহন করে চলেছেন আজীবন ।

ব্যক্তির চেয়ে সমষ্টিকরণই এসব গুনীজনের কর্মের পরিধি ধীরলয়ে বিস্তৃতিলাভ করেছে । সরল, সহজ, সাবলীল ব্যবহার, তার আচার-আচরণে ফুটে ওঠে । রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব সাইফুল ইসলাম বুড়ো মাতৃত্বের বন্ধনের ন্যায় আষ্টেপৃষ্ঠে বাঁধা এক আদর্শস্থল । প্রয়াসের নানা ক্ষেত্র আবিষ্কারের পরিকল্পক তিনি । রয়েছেন কর্মশৈলীতায় সর্বদা চিন্তামগ্ন । তিনি রাজনীতিতে আত্মপ্রকাশ করে গণমানুষের মনের দুয়ারে কড়া নাড়েননি ঠিকই, কিন্তু যারা কড়া নেড়েছেন, তাদের অনেককে গড়ে তোলার কারিগরও সাইফুল ইসলাম বুড়ো ।

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ অনুসরণ করে চলতে গিয়ে বিগত দিনে তাকে হতে হয়েছিলো স্বৈরাচার এরশাদ সরকার ও জামায়াত বি এন পি সরকারের আমলে তাদের রোষানলের স্বীকার । তাই তাকে হতে হয়েছিল ৩২ মামলার আসামী । আর তার সাথে এই সব মামলার আসামী হতে হয়েছিলো এই এলাকার প্রায় ৩ শতাধিক বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিকদের । তখন গ্রেপ্তার এড়াতে ও জীবন বাঁচাতে তাকে পালিয়ে বেড়াতে হয়েছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে । আর এই সুযোগে স্বৈরাচার এরশাদ ও জামায়াত বি এন পির লুটেরা তার ব্যবসা বাণিজ্য লুটে নিতে ভুল করেননি ।

এমন কি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছিলো তার বসত বাড়ি । এই ভাবে প্রায় সব ধরনেরই নির্যাতন চালানো হয়েছিলো আওয়ামীলীগ নেতা জনাব সাইফুল ইসলাম বুড়ো ও তার পরিবারের উপর । এতকিছুর পরেও তিনি মাথা নত করেননি কারন তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একজন সৈনিক ।

তার কথা একটাই বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিকেরা স্বাধীনতা বিরোধী শক্তির কাছে মাথানত করতে শিখেননি । বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের নির্দেশে ও রাজবাড়ী জেলার সিনিয়র আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দের সার্বিক দিক নির্দেশনায় পাংশা উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীদের সুসংগঠিত করে সবার মনে ঠায় করে নিয়েছেন তিনি । এক কথায় পাংশা উপ জেলা আওয়ামীলীগে সাইফুল ইসলাম বুড়োর কোন বিকল্প নেই ।

সুবর্নবাংলা-এসএমবি

সোস্যাল মিডিয়াতে আমাদের খবরটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় অন্যান্য খবর
© All rights reserved © 2020 SuborboBangla
Theme Download From ThemesBazar.Com